আমি বসে থাকবো আর তুই ফুল গুলো সব ঠিক

আমি বসে থাকবো আর তুই ফুল গুলো সব ঠিক ,  আহার ভাইয়ার সাথে ওই ঝামেলা হওয়ার পর লজ্জায়

আর বাইরে বের হইনি ঘড়ির দিক তাকিয়ে দেখি সকাল ৮ টা বাজে তবে বাইরে এতো চেচামেচি মনে হচ্ছে ১১টা

বাজে বিরক্ত নিয়ে উঠে ফ্রেশ হলাম। বাইবে যেতে ইচ্ছে করছে না তবুও রেডি হলাম। না আজ আর শাড়ি পরবো

না একটা অরেন্জ কালারের জামা পরলাম আর চুল গুলো ছেড়ে দিয়েছি। হালকা সাজলাম । সাজার

মন নাই তবুও সাজলাম কারন আর যারা আছে তারা সবাই মুখে মেকাপ দিয়ে এমন একটা ভাব

নিবে যে কেউ কাউকে চিনতে পারা মুশকিল। এমনকি নিজেরা নিজের চেহারা আয়নায় দেখে

আরও ভালবাসার গল্প পেতে ভিজিট করুউঃ todaylawfirm.com

আমি বসে থাকবো আর তুই ফুল গুলো সব ঠিক

তাই চিনতে পারে না আর সেখানে আমার সাজ হলো মন চাইলে ফেয়ার এন লাভলী দিতেও পারি না ও

পারি হালকা কাজল হালকা গোলাপি লিপস্টিক ব্যাস। এটাই আমার সাজ রুম থেকে বের হয়ে যা শুনলাম

তাতে আমার মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ার মতো অবস্থা। কারন আহান ভাইয়া সবাইকে বলে বেড়িয়েছে

আমি নাকি কালি গায়ে বসে থাকি। উপপ এই ছেলেটা আমার সব মানসম্মান শেষ করে দিলো। আপু দের কাছে

গিয়ে একটু বসেছিলাম কিন্তু সবাই আমার এই ব্যাপার টা নিয়ে খুব মজা নিলো। তাই ছাদে যাওয়াই উওম।

এদের কাছে থাকলে আমার বারোটা বাজবে। কিনতু আহার ভাইয়াকে কোথাও দেখলাম না। একবার পাই

সামনে তখন বুঝাবো অসয্য কর। ছাদে যাবো বলে সিড়ি দিক পা বাড়াতেই হাতে কারো টান পড়লো।

তাকিয়ে দেখি আমার ছোট কাকুর মেয়ে ক্লাস সেভেন এ পড়ে তবে পাকা অনেক। কি হয়েছে হাত

ধরে টানতেছিস কেনো। মনু আপু শুলাম তুমি নাকি খালিগায়ে বসে থাকো বলে ফিক করে হেসে দিলো

উপপ এই পুচকি মেয়েটাও আমাকে লজ্জা দিচ্ছে

ওই তোকে এ সব কে বলেছে। মাই ক্রাশ এই হেয়ালি না করে বল তো তোর এই মাই ক্রাশ টা কে।

আমি ভার্সিটি তে উঠে গেলাম একন ও ক্রাশ ব্রাশ খাইতে পারলাম না আর তুই এই টুকু পুচকি তোর কিনা

ক্রাশ আছে। হুম আমার ক্রাশ তো আহান ভাইয়া। বলে জিব কাটলো কি কিকিকি আহান ভাইয়া তোর ক্রাশ।

আপু কারবে বলো না প্লিজ। ভাইয়া আমার অনেক বড় না হলে প্রপ্রোজ করতাম বাট ভাইয়া অনেক বড়।

আমি বসে থাকবো আর তুই ফুল গুলো সব ঠিক

মাই ব্যাড লাক৷। তুমি কাওরে বলো না যেনো বোঝই তো অমন একটা চকলেট বয় সামনে দিয়ে ঘুরলে কার না ভালো লাগে বলো আমি দিভির কথায় ওর দিক এ চেয়ে আছি ভাবা যায় আহান ভাইয়াকে নাকি ওর ভালো লাগে।

বেশ রাগ হলো মনে হচ্ছিলো একটা চড় মেরে বলি আমার প্রপার্টির দিক নজর দিবি না। কিন্তু তা কখনই সম্ভাব না। অর্পার কথা শুনে আর কিছু ভালো লাগছে না কিছু খাওয়া উচিৎ তাই খাওয়ার জন্য

রান্নাঘরে গেলাম ওমা সেখানে গিয়ে দেখি আহান ভাইয়া একটা বড় বাটির পুরো এক বাড়ি মাংস পরাটা দিয়ে খাচ্ছে ওনার অমন খাওয়া দেখে আমার খিদেটা যেনো নেড়ে গেলো কিন্তু রাতের কথা মনে করে আর যেতে ইচ্ছে করছে না। পেছন ফিরে চলে আসতে নিলেই আহান ভাইয়া ডাক দিলো

About admin

Check Also

আমাকে দেখে তিনি বসতে বললেন আর বললেন কী

আমাকে দেখে তিনি বসতে বললেন আর বললেন কী

আমাকে দেখে তিনি বসতে বললেন আর বললেন কী, সমস্যায় পরেছি আমি। আমি সম্পূর্ণ ঘটনা খুলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *