আজ আমার ভালোবাসার মানুষটি আর আমার বুকে নেই

আজ আমার ভালোবাসার মানুষটি আর আমার বুকে নেই , রাকিব তো খুব ভালো করেই জানতো
আমি রাইকে ভালোবাসি।তাহলে ও কি করেই বা পারলো আজ বরের রুপে এখানে হাজির হতে।
হে প্রভু কেনো,বারবার আমার সাথেই এমনটা হয়।কি দোষ করেছি আমি।নিয়তি কেনো ঘুরে ফিরে প্রতিবার
অজস্র কষ্ট,যন্ত্রনা,বেদনা গুলোকে আমাকে ইঙ্গিত করে চিনিয়ে দেয়। ছোট বেলা থেকেই কষ্ট আমার
জীবন সঙ্গী লো!আছে,হয়তো ভবিষ্যতেও থাকবে। আনামনে কোথায় হেটে হেটে যাচ্ছি তা আমার খেয়ালের বাহিরে।

আরও ভালবাসার গল্প পেতে ভিজিট করুউঃ todaylawfirm.com

আজ আমার ভালোবাসার মানুষটি আর আমার বুকে নেই

তবে আজ আমার দুঃখে যেনো ঘোটা আকাশটা মেঘাচ্ছন্ন রুপ ধারন করেছে।কখনো ভাবতে ও পারিনি যে

রোহিকা ভাবী এতোটা নিম্ন মনের নিচু স্বভাবের একজন নারী।কি এমন অপরাধ করেছি আমি যে

রোহিকা ভাবী আমার সাথে এমন এক নিষ্ঠুর কাজ করলো।আমাকে এভাবে ফাসিয়ে দিলো। রাইয়ের সামনে আমার

মাথাটা নিচু করে দিলো। আমাদের সংসারটা ভেঙ্গে চুর্ন বিচুর্নতে রুপান্তর করে দিলো।শুধু মাত্র রোহিকা

ভাবীর জন্য আজ ভালোবাসার মানুষটি আমাকে ভুল বুঝে নতুন এক খাচায় বন্ধি হওয়ার জন্য বধুর

সাজে বিয়ের পিরিতে বসেছে।জানিনা এতে আমার ঠিক কত খানি কষ্ট হচ্ছে কিন্তু আজ তার চেয়ে ও অধিক

কষ্ট লাগছে,এটা ভেবে যে মাত্রারিক্ত খেটে যার অপারেশনের জন্য নিজের রক্ত পর্যন্ত বিক্রি করে য়ে ছিলাম।

আজ সেই বন্ধুই যে খুব ভালো করেই জানতো আমি রাইকে নিজের জান-প্রান দিয়ে ভালোবাসি।

কিন্তু তারপরও সব কিছু জেনে-শুনে এটা আজ সে কি করেই বা পারলো।জানি না আর কত দিনি

বা আমি এ পৃথিবীর মানুষদের রঙ বেরঙের রুপ গুলো দেখতে পারবো।রাই হীন বেঁচে থাকাটা

আমার পক্ষে কষ্ট সাধ্য ব্যাপার কারন রাই

ছিলো আমার বেঁচে থাকার অক্সিজেন। অক্সিজেন ছাড়া যেমন মানুষ বাঁচতে পারে না। তেমনি আমিও

রাই ছাড়া বেশি দিন বাঁচতে পারবো না।তবে তার আগে আমাকে যে করেই হোক রোহিকার ভাবীর মুখোমুখি

হতে হবে।তার উপর আঙ্গুল তুলে বলতে হবে কেনো আমার সংসারটা ধ্বংসের শীর্ষ স্থানে তুলো দিলো।

কেনো আমার সাথে তিনি এরুপ যঘন্য অন্যায় করলেন।কি এমন ক্ষতি করেছিলাম তার।যার জন্য আমাকে আজ

শ্বিকার হতে হচ্ছে।দীর পায়ে এগিয়ে গিয়ে নিজের গন্তব্যে যাওয়ার একটা বাসে গিয়ে উঠলাম।

পরের দিন সকাল সকাল নিজের শহরে গিয়ে পৌছিলাম।সারা রাত বাসে বসে নিরবে কান্না করেছিলাম।

এই ভেবে এতক্ষনে রাই হয়তো নতুন কারো খাচায় বন্ধি হয়ে গেছে। আস্তে আস্তে বাস থেকে নেমে পড়লাম।

আজ আমার ভালোবাসার মানুষটি আর আমার বুকে নেই

মাথাটা হাল্কা জিম জিম করছে সঙ্গে মাথা ব্যাথা তো বটেই।বাড়ির সামনে আসতেই দেখতে
পেলাম রোহিকা ভাবী বেলকনিতে দাঁড়িয়ে শান্ত মাথায় নিজের চুল চিরনি দিয়ে আচরাচ্ছে। অতঃপর দ্রুত রোহিকা ভাবীর ফ্লাটের সামনে গিয়ে কলিংবেল বাজানোর সাথে সাথে রোহিকা ভাবী দরজা খুলে দেয়।হয়তো এতক্ষন আমার অপেক্ষাতেই ছিলো। আমি জানতাম তুমি ঘুরে ফিরে আমার দুয়ারেই আসবে।

তা কি খাবে চা না কফি? এমনিতেই মাথাটা গরম হয়ে রয়েছে তার মধ্যে আবার রোহিকা ভাবীর এমন কথা গুলো আমাকে আমার রাগের শীর্ষে নিয়ে গিয়েছে। ঠাশঠাশ করে কোষে দুটো রোহিকা ভাবী কে থাপ্পার দিয়ে ধিক্কার দিতে দিতে বললাম, ছিহ,আপনার কি লজ্জা সরম আত্য সম্মান বলতে কিছুই নেই।আপনার কি ক্ষতি করেছি আমি?আপনি কেনো আমার সংসারটাকে ভেঙ্গে

About admin

Check Also

বড় স্বপ্ন নিয়ে বিয়ে না করলেও একটু আশা নিয়ে বিয়েটা

বড় স্বপ্ন নিয়ে বিয়ে না করলেও একটু আশা নিয়ে বিয়েটা , না সহ্য করতে পেরে।কোন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *